রাজশাহী সীমান্তে পাল্টাপাল্টি আটক,পতাকা বৈঠকে সমঝোতা

রাজশাহীর ইউসুফপুর সীমান্তের জিরো লাইন থেকে বৃহস্পতিবার দুপুরে তিন বাংলাদেশি নাগরিককে ধরে নিয়ে যায় ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) বামনাবাদ ফাঁড়ির সদস্যরা। বিজিবি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকে পড়া দুই ভারতীয় নাগরিককেও ধরে নিয়ে আসে।

এ নিয়ে দুই দেশের দুই বাহিনী পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করে তাদের নাগরিকদের অপহরণ ও আটকে রাখার।বিজিবি-বিএসএফের কমান্ডার পর্যায়ে বার্তা আদান-প্রদানের পর শুক্রবার বিকালে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে পরস্পর পরস্পরের নাগরিকদের ফেরত দিয়েছেন। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরের পর থেকে রাজশাহী সীমান্তে কিছুটা উত্তেজনা তৈরি হলেও নিজেদের নাগরিকদের ফেরত পাওয়ার পর তা প্রশমিত হয়েছে।

এলাকাবাসী ও বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাজশাহীর ইউসুফপুর সীমান্তের জিরো লাইনের কাছে নিজেদের জমিতে কাজ করছিল বাংলাদেশি কৃষকরা। এ সময় ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার রানীনগর থানার বামনাবাদ সীমান্ত ফাঁড়ির বিএসএফ সদস্যরা ৭০নং আন্তর্জাতিক সীমানা পিলারের নিকটবর্তী জিরো লাইনের ওপর থেকে তিন বাংলাদেশি নাগরিক সুমন কুমার (২৫), রবিউল ইসলাম রব্বেল (৪০) ও আলিকুজ্জামান আলেককে (২৪) ধরে নিয়ে যায়।

এর আধাঘণ্টা পর একই সীমান্তে জিরো লাইন অতিক্রম করে বাংলাদেশি সীমানায় ঢুকে পড়ে দুই ভারতীয় নাগরিক সহিদুল শেখ ও নয়ন সেখ। বিজিবির ইউসুফপুর ফাঁড়ির একটি টহল দল অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে তাদের আটক করে বাংলাদেশে নিয়ে আসে।

এ দিকে বিএসএফের লালবাগ ব্যাটালিয়ন হেডকোয়ার্টারের কমান্ডার পর্যায় থেকে রাজশাহীস্থ ১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার বরাবর ভারতীয় নাগরিকদের ফেরত দাবি করা হয়। বিজিবিও, বিএসএফের হাতে আটক তিন বাংলাদেশি নাগরিককে ফেরত দিতে বলে। শুক্রবার বিকালে আন্তর্জাতিক সীমানা পিলার ৬৮/১-এর নিকটবর্তী জিরো লাইনের ওপর পতাকা বৈঠকের পর উভয়পক্ষ পরস্পরের হাতে আটক নাগরিকদের ফেরত দেয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিজিবির ইউসুফপুর সীমান্ত ফাঁড়ির কমান্ডার নায়েক সুবেদার আবু তালেব জানান, শুক্রবার বিকালে সীমান্তের শূন্যরেখায় বিজিবি-বিএসএফের কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠকের পর পরস্পরের নাগরিকদের ফেরত দিয়েছে।